হাঁচি ও নাকে অ্যালার্জি হলে আমাদের করণীয়

0
400
হাঁচি ও নাকে অ্যালার্জি হলে আমাদের করণীয়

হাঁচি ও নাকে অ্যালার্জি হলে আমাদের করণীয়

আমাদের অনেকের ঘনঘন হাঁচির সাথে সাথে নাক দিয়ে প্রচুর পানি পড়ে থাকে। নাক বন্ধ ও চুলকানি ভাব থাকে তাহলে বুঝতে হবে আমরা অ্যালার্জিতে ভুগছি। একে অ্যালার্জিক রাইনাইটিস বলে। যাদের নাকে অ্যালার্জি আছে তাদের মধ্যে শতকরা ১৭-১৯ জনের হাঁপানি থাকে। আবার যাদের হাঁপানি থাকে তাদের মধ্যে শতকরা ৫৬-৭৪ জনের নাকে অ্যালার্জি থাকে। নাকে অ্যালার্জি, গলাব্যথা বা ফ্যারেনজাইটিস ও অ্যাজমা এ তিনের মধ্যে একটা বিশেষ সম্পর্ক বা যোগসূত্র আছে।

হাঁচি ও নাকে অ্যালার্জি হলে আমাদের করণীয়

এ তিন সমস্যাই অ্যালার্জি জণিত কারণে ঘটে থাকে। বাতাসে যদি কোনো অ্যালার্জেন বা অ্যালার্জির উদ্রেক হয় তবে নাক, গলা ও ফুসফুস এ তিন জায়গাতেই সমস্যা তৈরি হয়। নাকে অ্যালার্জি ছাড়াও আরেকটি ঘটনা ঘটে থাকে তা হলো নাকে ইরিটেশন। বায়ুমণ্ডলের দূষণ, ধুলা-বালি, সিগারেটের ধোঁয়া বা অন্য কোনো জিনিসের ধোঁয়া থেকে নাকে এ ইরিটেশন হয়। যারা জন্মগতভাবে অ্যালার্জির প্রতি সংবেদনশীল তাদের ইরিটেশনও বেশি হয়। এ ধরণের রোগীদের এটপি বলে।

আমাদের করণীয়:
১। আমাদেরকে ঠাণ্ডা, ধোঁয়া, ধুলা-বালি পরিহার করে চলতে হবে।

২। যে খাবার খেলে নাকে-গলায় হাঁচি, কাশি বা চুলকানির উদ্রেক হয় সেসব জিনিস সারা জীবনের জন্য আমাদের পরিহার করতে হবে।

৩। আমাদের বাড়িতে নোংরা কার্পেট, ধূলা বালিযুক্ত বই-খাতা, কাপড় চোপড় বা অপরিস্কার ফোমের সোফা রাখা উচিত নয়।

৪। বদ্ধঘর, পুরানো জিনিসপত্র, অফিসের অনেক দিনের অব্যবহৃত ফাইলপত্র এমনকি ফুলের রেণুকেও এড়িয়ে চলতে হবে।

৫। এন্টিহিস্টামিন জাতিয় ঔষধ ও নাকে স্টেরয়েড স্প্রে ব্যবহার করা যেতে পারে।

বেশি সমস্যা হলে অবশ্যই বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here