ল্যাপটপ গরম হওয়ার কারণ ও আমাদের করণীয় – টেকরোমবিডি

0
255
ল্যাপটপ গরম হওয়ার কারণ ও আমাদের করণীয় - টেকরোমবিডি

ল্যাপটপ গরম হওয়ার কারণ ও আমাদের করণীয়

আমরা যারা নিয়মিত ল্যাপটপ ব্যবহার করি আমাদের কাছে ল্যাপটপ গরম হয়ে যাওয়া অনেকটা স্বাভাবিক ব্যাপারে পরিণত হয়েছে, কিন্তু নতুন ব্যবহারকারীর কাছে বেশ ভয়াবহ ব্যাপার। তবে যন্ত্রাংশে সমস্যার কারণেও ল্যাপটপ গরম হতে পারে। আবার পর্যাপ্ত বায়ুপ্রবাহের কারণেও ল্যাপটপ গরম হয়ে যায়। তবে এসব তেমন কোন গুরুতর সমস্যা নয়। সহজ কিছু পদ্ধতি বা কৌশল অবলম্বন করে খুব সহজেই ল্যাপটপের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ করা করা যায়।

শুরুতেই জেনে নিতে হবে ল্যাপটপ ঠিক কতটুকু গরম হচ্ছে? ল্যাপটপ সব সময় হালকা গরম হতে পারে। কিন্তু অতিরিক্ত গরম হলে তখন চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। ল্যাপটপ অতিরিক্ত গরম হচ্ছে কি না, তা বোঝার জন্য ফ্যান কত দ্রুত চলছে, তা খেয়াল রাখতে হবে। ফ্যান দ্রুত ঘুরলে এতে ল্যাপটপের অপারেটিংয়ের গতি কমে যায়। উৎপন্ন তাপ কমাতে সিপিইউ তখন ক্লক স্পিড কমিয়ে দেয়। তার সাথে সাথে কাজের গতিও কমে যায়।

সম্ভাব্য সামাধান :

১। ল্যাপটপের কুলিং ফ্যান সঠিক ভাবে কাজ করছে কিনা: অনেক সময় ল্যাপটপের কুলিং ফ্যানটি সঠিক ভাবে কাজ করে না। যদি ধুলা-বালি জণিত কারণে কুলিং ফ্যানটি ঠিক-ঠাক ঘুরতে না পারে তাহলে তা পরিস্কার করে নিতে পারি। আর সেটি যদি কোন কারণে অকেজো হয়ে যাই তাহলে সেটা পরিবর্তন করে নিতে হবে। আপনি নিজে কাজটি করতে না পারলে পেশাদার কারো কাছে নিতে পারেন।

২। ল্যাপটপের কুলিং ফ্যানে গতি কমাতে পারেন: অনেক সময় দেখা যায় কুলিং ফ্যানটি সর্বদা হাই স্পিডে ঘুরতে থাকে। সেক্ষেত্রে ল্যাপটপের কুলিং ফ্যানের স্পিড নিয়ন্ত্রনের মাধ্যমে ল্যাপটপটির অতিমাত্রায় গরম হওয়া থেকে রক্ষা করতে পারি। তাছাড়া ফ্যানের স্পিড কম-বেশি করার জন্য বিভিন্ন ধরণের সফটওয়্যার পাওয়া যায়, যেমন-স্পিডফ্যান।

৩। শক্ত ও সমতল স্থানে রেখে ল্যাপটপটি ব্যবহার করা: অধিকাংশ ক্ষেত্রেই আমাদের ল্যাপটপ গরম হওয়ার মূল কারণ হলো অসমতল কোন স্থান পূরণ বিছানায় বালিশের ওপর রাখা। এর ফলে ল্যাপটপ এর ভেতরে হওয়া গরম বাতাস বের হতে পারে না এবং বাতাস চলাচলের পথ বন্ধ থাকায় এটি গরম হতে থাকে। ল্যাপটপকে ঠান্ডা রাখতে সর্বপ্রথম যে কাজটি করতে হবে তা হচ্ছে সমতল ও শক্ত স্থানে রেখে ব্যবহার করা । আর বালিশ বা বিছানার উপর রাখতে হলে ল্যাপটপের দুপাশে দুটি বই দিয়ে বায়ু চলাচলের মতো উপযুক্ত জায়গা করে দিতে হবে।

৪। অনবরত চার্জ দেয়া থেকে বিরত থাকা : আমদের দেশে ল্যাপটপ ব্যবহারকারীদের মধ্যে ৭৫% ব্যক্তিই এটা অনবরত চার্জ দিতে থাকে এটা একদিকে যেমন ব্যাটারির জন্য ক্ষতিকর অপরদিকে ল্যাপটপের পার্টস গুলোর জন্যও ক্ষতিকর। এই কারণে ল্যাপটপ ফুল চার্জ অবস্থায় থাকলে অবশ্যই চার্জিং ক্যাবল টি খুলে রাখতে হবে।

৫। অপ্রয়োজনীয় সফটওয়্যার গুলো বন্ধ রাখা: অনেক সময় আমরা প্রয়োজনে বা কৌতুহল বশত: বিভিন্ন ধরণের সফটওয়্যার ইন্সটল করে থাকি। আমাদের ল্যাপটপের অপ্রোজনীয় সফটওয়্যারগুলো ল্যাপটপ গরম হয় আর একটি বড় কারণ। মাঝে মাঝে আমরা ভিন্ন কাজ করার সময় বিভিন্ন রকম সফটওয়্যার কাজে না লাগলেও চালু অবস্থায় মিনিমাইজ করে রাখি। যার ফলে এটি ব্যাকগ্রাউন্ডের সচল থাকে এবং সি পি ইউ এর উপর প্রভাব ফেলে। অনেক সময় এই অতিরিক্ত সফটওয়্যার এর ফলে ল্যাপটপ টি গরম হয়ে যায়। এজন্য আমাদের উচিত ল্যাপটপ চালানোর সময় অপ্রয়োজনীয় সফটওয়্যার গুলো মিনিমাইজ না করে বন্ধ করে রাখা।

৬। ল্যাপটপের জন্য কুলিং প্যাড ব্যবহার করা: ল্যাপটপের জন্য কুলিং প্যাড ব্যবহার করা অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি বিষয়। অনেকেই ল্যাপটপে ভারী কাজ করে থাকি, যার ফলে ল্যাপটপ দ্রুত গরম হয়ে যায়। কিন্তু আমরা যদি আমাদের সুবিধা মত সাইজের একটি কুলিং প্যাড ব্যবহার করতে পারি তাহলে ল্যাপটপটি গরম হওয়ার হাত থেকে রক্ষা পেতে পারে।

৭। ব্রাউজারে ট্যাব সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে রাখা: অনেক সময় আমরা ইন্টারনেট স্পিড কম থাকার কারণে অনেকগুলো ট্যাব ওপেন করে রাখি। অনেকেই মনে করি শুধুমাত্র আমরা যে ট্যাবটিতে সচল অবস্থায় আছি সেটি শুধু রানিং আছে কিন্তু বিষয়টা ভুল। একসাথে অনেকগুলো ব্রাউজার ওপেন করলে প্রত্যেকটি চালু থাকে এবং সিপিইউ এর উপর প্রভাব বিস্তার করে । অপ্রয়োজনীয় ভাবে একসাথে অনেকগুলো ট্যাব খোলা রাখলে সিপিইউ এর উপর অতিরিক্ত চাপ পড়ে।

৮। ব্যাগে চালু ল্যাপটপ নয়: ল্যাপটপ ব্যাগে রাখার সময় স্ট্যান্ডবাই মোড বা চালু না রাখাই ভালো। এতে ল্যাপটপ অতিরিক্ত গরম হবে। তাপমাত্রা বেশি হলে ল্যাপটপ স্বয়ংক্রিয়ভাবে বন্ধ হয়ে যেতে পারে। আশা করি উপরোক্ত বিষয়গুলো খেয়াল রাখলে আমাদের প্রিয় ও প্রয়োজনীয় ল্যাপটপটি সুরক্ষিত থাকবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here